ওয়েব পেইজ বলতে কি বুঝ ?

ওয়েব পেইজ হলো এক ধরনের ওয়েব ডকুমেন্ট যা ইন্টারনেটে ব্যবহারকারীদের দেখার জন্য বিভিন্ন দেশের সার্ভারে রাখা ফাইলকে ওয়েব পেইজ বলে। ব্রাউজারের মাধ্যমে ওয়েবপেজকে প্রদর্শন করা যায় এবং এক ওয়েবপেজের সাথে অন্য পেজের লিংক তৈরি করা যায়।

ওয়েব সাইট বলতে কি বুঝ ?

একই ডোমেইনের অধীনে একাধিক ওয়েবপেজের সমষ্টিকে ওয়েবসাইট বলা হয়। অর্থাৎ ইন্টারনেটের সাথে যথাযথ ভাবে সংযুক্ত কোন কম্পিউটারের বরাদ্দকৃত স্পেস বা লোকেশন যাতে এক বা একাধিক ওয়েব পেইজ সংরক্ষণ করে রাখা হয়।

ওয়েবসাইট খুলতে যা যা প্রয়োজন ?

১. প্রথমে একটি ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।
২. ওয়েবপেইজ গুলো ডিজাইন করতে হবে।
৩. ওয়েবপেজ গুলো সার্ভারে রাখতে হবে।
৪. ওয়েবসাইটটি বেশি প্রচার করার জন্য সার্চ ইঞ্জিনে সাবমিশন করতে হবে।

ওয়েব সাইট চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় নিয়মাবলী ?

১. ডোমেইন নেইম রেজিস্ট্রেশন করা: প্রথমত সুন্দর একটি নাম বের করতে হবে যা সহজে মনে রাখা যায় এবং নামটি যেন অর্থবোধক হয় তা নির্বাচন করে সেই নামের ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।
২. ওয়েব পেইজ ডিজাইন করা: দ্বিতীয়ত ওয়েব পেইজ ডিজাইন করতে হবে। অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা অর্থের বিনিময়ে ওয়েব পেইজ ডিজাইন করে দেয়।
৩. ওয়েব সার্ভারে পেইজ হোস্টিং: ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন ও ওয়েব পেইজ ডিজাইন সম্পন্ন করার পর ওয়েব সাইট বা পেইজগুলো কোন নির্ভরযোগ্য কোন সার্ভারে হোস্ট করতে হবে। অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা অর্থের বিনিময়ে ওয়েব হোস্টিং সার্ভিস প্রদান করে।

ওয়েবসাইটের সুবিধা:

১.অল্প খরচে কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান তাদের ব্যবসা প্রসারের জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারে।
২.ওয়েবসাইটে লেখার পাশাপাশি ছবি, গ্রাফিক্স, অডিও, ভিডিও ইত্যাদি যুক্ত করতে পারে।
৩.ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য যে কেউ যে কোন স্থান থেকে যে কোন সময় দেখতে পারে।
৪.ওয়েবসাইটে তাৎক্ষণিক তথ্য প্রকাশ করা যায়।
৫.ওয়েবসাইট থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য ডাউনলোড করা যায়।
৬.ঘরে বসে বাস, ট্রেন, প্লেনের টিকিট ক্রয় করা যায়।
৭.হসপিটাল বা হোটেলের ওয়েবসাইটে ঢুকে রুম বুকিং দেয়া যায়।
৮.বিশ্বের বড় বড় লাইব্রেরির সাইটে ঢুকে বই পড়া যায়।

ওয়েব পেইজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ফাইল সমুহ:

টেক্সট ডেটা ফাইল: ওয়েব পেইজে বিভিন্ন ধরনের ট্রেক্সট ডেটা ফাইল ব্যবহৃত হয়। যেমন: ওয়ার্ড ডকুমেন্ট ফাইল (.doc), পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন (.ppt), পোর্টেবল ডকুমেন্ট ফাইল (.pdf) ইত্যাদি।
ছবি ও গ্রাফিক্স ফাইল: ওয়েব পেইজে বিভিন্ন ধরনের ছবি ও গ্রাফিক্স ফাইল ব্যবহৃত হয়। যেমন: Joint Photographic Expert Group (.jpeg), Portable Network Graphics(.png), Graphics Interchange Format (.gif) ইত্যাদি।
অডিও এবং ভিডিও ফাইল: ওয়েব পেইজে বিভিন্ন ধরনের অডিও এবং ভিডিও ফাইল ব্যবহৃত হয়। যেমন: .mp3, .mp4, .mov, .mpeg, .avi ইত্যাদি।

ওয়েব পোর্টাল বলতে কি বুঝ ?

 ওয়েব পোর্টাল হচ্ছে এমন একটি বিশেষ ওয়েবপেজ যেখানে অনেক উৎস থেকে সংগৃহীত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, কন্টেন্ট এবং বিভিন্ন লিংক সাজানো থাকে। যেমন: বাংলাদেশ সরকারের ”বাংলাদেশ বাতায়ন” (www.bangladesh.gov.bd) পোর্টালটি একটি ওয়েব পোর্টাল।

আইপি অ্যাড্রেস বলতে কি বুঝ ?

IP Address এর পূর্ণ রুপ হলো Internet Protocol Address। ইন্টারনেটে যুক্ত প্রতিটি কম্পিউটারের একটি ঠিকানা থাকে। এই ঠিকানাকে আইপি অ্যাড্রেস বা IP(Internet Protocol) বলা হয় । বর্তমানে ইন্টারনেট প্রোটোকল ভার্সন ৪ বা IPV4 চালু আছে। IPV4 32 বিটের হয়ে থাকে।
আইপি অ্যাড্রেস এর শ্রেণিবিভাগ নিম্নে দেয়া হল:

IP Types

ডোমেইন নেইম বলতে কি বুঝ ?

আইপি এ্যাড্রেসকে সহজে ব্যবহার করার জন্য ইংরেজি অক্ষরের কোন নাম ব্যবহার করা হয়। কম্পিউটারে ব্যবহৃত এরুপ নামকে ডোমেইন নেম বলা হয়। আইপি অ্যাড্রেস মনে রাখা বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার তাই এটাকে সহজ করার জন্য ইন্টারনেটে Domain Name System (DNS) নামে ব্যবহার করা হয়। যেমন:iit-bd.org একটি ডোমেইন নেইম।

domain name and type

বর্তমানে কয়েকটি প্রচলিত জনপ্রিয় ডোমেইন নেইম:

domain eample

URL বলতে কি বুঝ ?

একটি ওয়েব সাইট বা পেজের পুর্ণাঙ্গ অ্যাড্রেসকে URL বলে। এর পুর্ণরুপ হলো Uniform Resources Locator।

IP Address ও URL এর মধ্যে পার্থক্য:

ip address and url

IP Address ও ডোমেইন নেম এর মধ্যে পার্থক্য:

Difference ip and domain name

ওয়েব ব্রাউজার বলতে কি বুঝ ?

 যে সফটওয়্যার ইন্টারনেটের ইনফরমেশন বা web page প্রদর্শনের কাজ করে তাকে ওয়েব ব্রাউজার বলে। ওয়েব ব্রাউজিং এর জন্য বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার রয়েছে। যেমন : Internet Explorer, Mozilla Firefox, Opera, Google Chrome, Safari, Netscape, Flock, Brave, UC Mini ইত্যাদি।

সার্চ ইঞ্জিন বলতে কি বুঝ ?

ইন্টারনেটের অজস্র ওয়েব সার্ভার থেকে সহজেই যেকোন তথ্য খুজে বের করার টুলকে সার্চ ইঞ্জিন বলা হয়। বর্তমান ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিন গুলো হল- Google, Bing, Yahoo, MSN, পিপীলিকা ইত্যাদি।

একটি সার্চ ইঞ্জিন তিনটি সফটওয়্যার এর মাধ্যমে কাজ সম্পন্ন করে,সফটওয়্যারগুলো হচ্ছে-

১.ওয়েব ক্রোলার (Web Crawler) বা স্পাইডার সফটওয়্যার: এটি এমন একটি সফটওয়্যার যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজ করে এবং নতুন নতুন তথ্যকে তার ডেটাবেজ সংরক্ষণ করে সাজিয়ে রাখে।
২.ইনডেক্স সফটওয়্যার (Index software): ইনডেক্স সফটওয়্যার এর প্রধান কাজ হল ওয়েব ক্রোলার এর কাছে থেকে গ্রহন করা সকল তথ্য সার্চ ইঞ্জিনে সংরক্ষণ করা অর্থাৎ ওয়েব ক্রোলার থেকে পাওয়া তথ্যকে এনালাইজ বা বিশ্লেষণ করে।
৩.কুয়েরি সফটওয়্যার(Query software): প্রথমে ওয়েব ক্রোলার ওয়েবপেজ থেকে পাওয়া তথ্যগুলোকে সংগ্রহ করে সেগুলোকে যাচাই করার জন্য ইনডেক্স সফটওয়্যার এর কাছে পাঠায় ইনডেক্স সফটওয়্যার সেগুলোকে এনালাইজ করে লিস্টিং করে এবং কুয়েরি সফটওয়্যার এর প্রয়োজন অনুসারে সেগুলোকে ভিজিটরের সামনে প্রদর্শন করে।

ওয়েব সাইট বলতে কি বুঝ ?

ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত কোন কম্পিউটারের বরাদ্দকৃত স্পেস বা লোকেশন যাতে এক বা একাধিক ওয়েব পেইজ সংরক্ষণ করে রাখা যায় তাকে ওয়েবসাইট বলে।

ওয়েব সাইটের প্রকারভেদ:

গঠন বৈচিত্র্যের উপর ভিত্তি করে ওয়েবসাইটকে মুলত দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যথা-

১.স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট (Static Website) : যে সকল ওয়েবপেজে পূর্ব থেকে তৈরিকৃত কিছু তথ্য প্রদর্শণ করে থাকে সে সকল ওয়েবপেজকে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট বলে। স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের ডেটার মান ওয়েবপেজ লোডিং বা চালু করার পর পরিবর্তন করা যায় না। স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য HTML ভাষার ব্যবহৃত হয়।
২.ডাইনামিক ওয়েবসাইট (Dynamic Website) : যে সকল ওয়েবসাইটের ডেটার মান ওয়েবপেজ লোডিং বা ওয়েব পেইজ চালু করার সময় পরিবর্তন করা যায় তাকে ডাইনামিক ওয়েবসাইট বলে। ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য HTML ভাষার সাথে Java Script, PHP, ASP ইত্যাদি ব্যবহৃত হয়।

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট ও ডায়নামিক ওয়েবসাইটের মধ্যে পার্থক্য:

static website and dynamic website

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের সুবিধাসমূহ

১.ইউজারের ব্রউজারে খুব দ্রæত লোড হয়।
২.উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রন করা সহজ।
৩.সাধারণত কোন ডাটাবেজ সংযোগ থাকে না।
৪.এই ওয়েবসাইট উন্নয়নে খরচ অনেক কম।
৫.তুলনামূলকভাবে বেশি নিরাপদ।

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের অসুবিধাসমূহ :

১.রান টাইমে কনটেন্ট আপডেট করা যায় না।
২.কনটেন্ট আপডেট করতে বেশি সময় লাগে।
৩.ব্যবহারকারী থেকে ইনপুট নেয়া যায় না।
৪.মানসম্মত ডিজাইন অনেক কষ্টসাধ্য ও সময়সাপেক্ষ ।
৫.কোন কিছু পরিবর্তনের জন্য বার বার কোডে গিয়ে কাজ করতে হয়।

ডায়নামিক ওয়েবসাইটের সুবিধাসমূহ:

১.তথ্য দ্রæত আপডেট করা যায়।
২.অনেক আকর্ষণীয় ডিজাইনের হয়।
৩.ইউজারের কাছে থেকে ইনপুট নিয়ে কাজ করা যায়।
৪.ইউজারের চাহিদা অনুযায়ী তথ্য আপডেট করা যায়।
৫.ডেটাবেজ ব্যবহার করে কুয়েরি করে তথ্য বের করা যায়।

ডায়নামিক ওয়েবসাইটের অসুবিধাসমূহ:

১.ডেটাবেজ এবং গ্রাফিক্স এর কারনে লোডিং হতে বেশি সময় লাগে।
২.উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রন তুলনামূলক জটিল।
৩.এই ওয়েবসাইট তৈরিতে খরচ বেশি।
৪.অনেক বেশি পরিমান স্টোরেজের প্রয়োজন হয়।
৫.দক্ষ জনবল প্রয়োজন।

ওয়েব সাইটের কাঠামো বলতে কি বুঝ ?

যে অবকাঠামোতে একটি ওয়েবসাইটের সকল তথ্য বা বিষয়বস্তু উপস্থাপন করা হয় তাকে ওয়েবসাইটের কাঠামো বলে। একটি ওয়েব সাইটের মধ্যে অনেক ওয়েব পেইজ থাকতে পারে। ওয়েব সাইটের অর্ন্তগত বিভিন্ন পেইজগুলো কিভাবে সাজানো থাকবে, ওয়েব সাইটে প্রবেশ করলে প্রথমে কোন পেইজ আসবে, যেখান থেকে অন্যান্য পেইজে কিভাবে যাওয়া যাবে, এই সকল বিষয়সমূহ ওয়েব সাইটের কাঠামোতে উল্লেখ্য থাকে।

ওয়েবসাইট কাঠামোর প্রকারভেদ:

একটি ওয়েবসাইটের কাঠামোকে চার ভাগে ভাগ করা যায়। যথা-

১.হায়ারারকিক্যাল বা ট্রি
২.নেটওয়ার্ক বা ওয়েব লিংকড
৩.লিনিয়ার বা সিকুয়েন্স
৪.হাইব্রিড বা কম্বিনেশন

HTML বলতে কি বুঝ?

HTML এর পূর্ণরুপ হলো Hyper Text Mark-up Language । ওয়েবপেজ তৈরির জন্য বহুল ব্যবহৃত একটি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ। এটি মূলত টেক্সটভিত্তিক প্রোগ্রাম ভাষা। টিম বার্ণার লী (Tim Berners Lee) ১৯৯০ সালে সর্বপ্রথম HTML আবিষ্কার করেন। HTML ফাইলের এক্সটেনশন হলো .html। HTML এর সর্বশেষ ভার্সন হচ্ছে HTML5।

HTML এর ধারণা :

HTML দিয়ে তৈরি কোন ওয়েব পেইজের সাধারণত দুইটি প্রদান অংশ থাকে। যথা-
১.Head অংশ: এই অংশে ওয়েব পেইজের Title বা শিরোনাম থাকে। যেমন: <head></head>
২.Body অংশ: এই অংশে ওয়েব পেইজের ডকুমেন্টের মূল অংশ যাতে তথ্য প্রদর্শন করা হয়। যেমন: <body></body>

HTML এর গঠন:

HTML এর গঠন বা Structure হল-

<html>
         <head>
                      <title>PageTitle</title>
         </head>
                     <body>
                     </body>
</html>

HTML Element কি বলতে কি বুঝ ?

HTML ডকুমেন্ট বা ওয়েব পেজের আলাদা বা স্বতন্ত্র অংশসমুহ HTML উপাদান বা এলিমেন্ট নামে পরিচিত। HTML এর শুরুর ট্যাগ থেকে আরম্ভ করে শেষ ট্যাগ পর্যন্ত সকল কিছুকে উপাদান বা এলিমেন্ট বলা হয়।

এইচটিএমএল (HTML) এর সুবিধা :

১.ওয়েব ফর্ম ডিজাইন করা যায়।
২.বিভিন্ন ধরনের ফরম্যাটিং করা যায়।
৩.এটি একটি ওপেন টেকনোলজি।
৪.এইচটিএমএল এ তৈরি করা যে কোন সাইটকে রক্ষণাবেক্ষণ এবং আপডেট করা সহজ।
৫.ওয়েব পেজের টেমপ্লেট গঠন করা যায়।
৬.থার্ড পার্টি কোন অ্যাপ্লিকেশন ছাড়াই ওয়েব অডিও, ভিডিও যুক্ত করা যায়।

কয়েকটি এডিটরের নাম:

  1. Notepad
  2. Notepad ++
  3. Sublime Text

HTML Tag list ও তার কাজ সমূহ

html tag

html tag

hsc ict html

hsc ict html

hsc ict html tag

hsc ict html tag

ওয়েব অ্যাড্রেস বলতে কি বুঝ ?

প্রতিটি ওয়েব সাইটের একটি নির্দিষ্ট ঠিকানা থাকে। আমরা যখন ইন্টারনেটের সাহায্যে যে কোন জায়গা থেকে কোন ওয়েব সাইটের সেই ঠিকানা বা পেইজগুলোকে ওয়েব ব্রাউজারে খুজে বের করি, সেই ঠিকানাকে ওয়েব অ্যাড্রেস বলে। যেমন: http://www.iit-bd.orgএকটি ওয়েব অ্যাড্রেস।

ওয়েব সার্ভার বলতে কি বুঝ?

ওয়েব সার্ভার বলতে বিশেষ ধরনের হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারকে বুঝায় যার সাহায্যে ঐ সার্ভারে রক্ষিত কোন উপাত্ত বা তথ্য ইন্টারনেটের মাধ্যমে অ্যাকসেস করা যায়।

হাইপারলিঙ্ক বলতে কি বুঝ ?

হাইপারলিঙ্ক বলতে বুঝায় কোন একটি ওয়েব পেইজের সাথে অন্য একটি পেইজের সাথে সংযোগ স্থাপন করা।

রেন্ডারিং ইঞ্জিন (Rendering Engine) বলতে কি বুঝ ?

ওয়েব ব্রাউজার সফটওয়্যারের যে অংশে ডিসপ্লে বা প্রদর্শন ও প্রিন্ট করার জন্য টেক্সট ও ইমেজ গঠনকরে তাকে রন্ডারিং ইঞ্জিন বলে। মূলত এই ইঞ্জিন এইচটিএমএল ডকুমেন্টকে ব্রাউজার প্রদর্শনযোগ্য করার জন্য টেক্সট ও ছবি গঠন করে।

ডাউনলোড বলতে কি বুঝ ?

কম্পিউটার নেটওর্য়াকে ডাউনলোড হচ্ছে ইন্টারনেট হতে কোন তথ্য নিজস্ব কম্পিউটার বা ডিভাইসে সংরক্ষন করাকে বুঝায়। যেমন: ই-মেইল বা ওয়েবসাইট হতে কোন ফাইল নিজের কম্পিউটার বা ডিভাইসে সংরক্ষন করা।

আপলোড বলতে কি বুঝ ?

কম্পিউটার নেটওর্য়াকে আপলোড হচ্ছে ইন্টারনেটর সাহায্যে নিজের কম্পিউটার হতে তথ্য দূরবর্তী কোন সিস্টেমে পাঠানো। যেমন: ই-মেইলের মাধ্যমে কোন ফাইল অন্য কাউকে পাঠানো হয়।

error: Content is protected !!
Share This