সংখ্যা পদ্ধতি বলতে কি বুঝ?

কান সংখ্যা লেখা বা প্রকাশ করার পদ্ধতিকেই সংখ্যা পদ্ধতি বলা হয়। এসব সংখ্যা লিখে প্রকাশ করার জন্য যেসব সাংকেতিক চিহ্ন বা মৌলিক চিহ্ন ব্যবহার করা হয় তাকে অঙ্ক বলে। সংখ্যা পদ্ধতি প্রধানত দুই ধরনের-

-পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতি (Positional Number System)

  1. ডেসিম্যাল (Decimal) সংখ্যা পদ্ধতি বা ১০ ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতি।
  2. বাইনারি (Binary) সংখ্যা পদ্ধতি বা ২ ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতি।
  3. অক্টাল (Octal) সংখ্যা পদ্ধতি বা ৮ ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতি।
  4. হেক্সাডেসিম্যাল (Hexadecimal) সংখ্যা পদ্ধতি বা ১৬ ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতি। 

-নন-পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতি (Non Positional Number System)

What is Number System | Types, Base and Example | সংখ্যা পদ্ধতি | Class-1 

পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতিতে কোন একটি সংখ্যার মান বের করার জন্য কী কী প্রয়োজন হয় ?

পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতিকে কোন একটি সংখ্যার মান বের করার জন্য তিনটি ডেটা দরকার হয়:পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতিকে কোন একটি সংখ্যার মান বের করার জন্য তিনটি ডেটা দরকার হয়:

১. সংখ্যাটিতে ব্যবহৃত অংকগুলোর নিজস্ব মান

২. সংখ্যা পদ্ধতির বেজ

৩. সংখ্যাটিতে ব্যবহৃত অংকগুলোর অবস্থান বা স্থানীয় মান।

ডেসিম্যাল (Decimal) সংখ্যা পদ্ধতি বলতে কি বুঝ ?

আমরা কোন কিছুর হিসাব করতে যে সাংকেতিক চিহ্ন ব্যবহার করি তাকে অঙ্ক বা ডিজিট বলে। এসব অঙ্কের ০, ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮, ৯ পর্যন্ত ১০টি অঙ্ক বা সংখ্যা ব্যবহার করা হয়। তাই এর বেস বা ভিত্তি ১০। উদাহরণ- (১২৫)১০, (১২৩)১০ ইত্যাদি।

বাইনারি (Binary) সংখ্যা পদ্ধতি বলতে কি বুঝ ?

যে সংখ্যা পদ্ধতিতে ইরহধৎু উরমরঃ হিসেবে ০ ও ১ ব্যবহৃত হয় তাকে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতি বলে। যেহেতু বাইনারিতে শুধু দুইটি অঙ্ক ব্যবহৃত হয়, তাই এর বেস বা ভিত্তি ২। উদাহরণ- (১০১)২, (১০১১)২ ইত্যাদি।

অক্টাল (Octal) সংখ্যা পদ্ধতি বলতে কি বুঝ ?

এই পদ্ধতিতে ০, ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭ সহ সর্বমোট ৮টি অঙ্ক ব্যবহৃত হয় তাই এই সংখ্যা পদ্ধতির বেস বা ভিত্তি ৮। যাবতীয় গাণিতিক হিসাব-নিকাশ ৮টি অঙ্ক নিয়ে হয় বলে উক্ত সংখ্যা পদ্ধতিকে অক্টাল সংখ্যা পদ্ধতি বলে। উদাহরণ- (১৩৫)৮, (১২৫)৮ ইত্যাদি।

হেক্সাডেসিম্যাল (Hexadecimal) সংখ্যা পদ্ধতি বলতে কি বুঝ?

 যে সংখ্যা পদ্ধতির বেস বা ভিত্তি ১৬ তাকে হেক্সাডেসিম্যাল সংখ্যা পদ্ধতি বলে। Hexa অর্থ ছয় ও ডেসিম্যাল অর্থ দশ। তাই দশমিক সংখ্যার প্রথম দশ অঙ্কের সাথে পরবর্তীতে ইংরেজি প্রথম ৬টি বড় বর্ণ (Capital Letter) ব্যবহার করে হেক্সাডেসিম্যাল সংখ্যা পদ্ধতি প্রকাশ করা হয়। হেক্সাডেসিম্যালের ১৬টি অঙ্ক হচ্ছে ০, ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮, ৯, A, B, C, D, E, F । উদাহরণ- (A2B)16, (B4D)16 ইত্যাদি।

error: Content is protected !!